|

ভালুকায় অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগে বাধা দেয়ায় হামলা মারপিট ও লুটপাটের অভিযোগ

প্রকাশিতঃ ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ | সেপ্টেম্বর ২০, ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক, ভালুকার খবরঃ ভালুকায় অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগে বাধা দেয়ায় দিন দুপুরে প্রকাশ্যে বাজারে হামলা, মারপিট ও লোটপাটের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনাটি ঘটেছে ১৯ সেপ্টেম্বর দুপুরে উপজেলার উথুরা ইউনিয়নের চামিয়াদি গ্রামে। মোঃ রফিকুল ইসলামের বাড়ির বিদ্যুৎ লাইন থেকে পার্শবর্তি রাশিদুল ও শাহ আলম চুরি করে অবৈধ ভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে মুরগীর ফার্ম চালালে রফিকুলের পিতা আনোয়ার হোসেন তা টের পেয়ে প্রতিবাদ করলে ঘটনার সূত্রপাত ঘটে।

মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, আমার বাড়িতে পল্লি বিদ্যুতের লাইন স্থাপন করে বিদ্যুৎ সংযোগ গ্রহন করে দীর্ঘ দিন যাবৎ চলিতেছি। কিন্তু কিছুদিন যাবৎ একই এলাকার, আঃ লতিফের ছেলে রাশিদুল ও মোঃ আব্দুল কদ্দুসের ছেলে শাহ আলম গংরা আমার বাড়ির ক্রয়কৃত লাইন থেকে চুরি করে বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে তাদের মুরগির ফার্মে ব্যবহার করছিলো। বিষয়টি আমার পিতা আনোয়ার হোসেন টের পেয়ে বিদ্যুৎ চুরির প্রতিবাদ করলে রাশিদুল ও শাহ আলম গংরা সেখানেই তারা আমার পিতাকে শারীরীক ভাবে হেনস্তা করে এবং খুন জখমের হুমকি প্রদান করে।

এ ঘটনায় আমি ভালুকা মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করি। পরে স্থানীয় নেতৃবৃন্দ ঘটনার মিমাংসা করে দিবার আশ্বাস দেয়। পরে ১৯ সেপ্টেম্বর রোববার সকালে স্থানীয় নেতৃবৃন্দ সালিশে বসে। কিন্তু তারা সালিশে দেয়া রায় না মেনে উঠে যায়। তার কিছুক্ষন পরই চামিয়াদি বাজারের গুল চত্তর এলাকায় শাহ আলম ও রাশিদুল গংরা ৫/৬ জন ভারাটে লোক লাঠি শোঠা নিয়ে আমাদের উপর অতর্কিত হামলা চালায়।

হামলায় আমি, আমার পিতা, আমার ভাগিনা, মামা, চাচাত ভাই সহ অনেকেই আহত হই। তখন শাহ আলম আমার ব্যবহৃত ২২ হাজার টাকা মুল্যের মোবাইল ফোনটি ভেঙ্গে ফেলে এবং রাশিদুল আমার মামার পকেট থেকে ২৭,২৭৫ টাকা জোরপূর্বক ছিনাইয়া নেয়। অতপর আমার উপর হামলার ঘটনা শুনিয়া আমার মেয়ে রিমি আক্তার (১৪), স্কুল থেকে বাজারে আসার পথে সন্ত্রাসীরা আমার মেয়ের উপর হামলা করে এলোপাথারি কিল ঘুষি লাথি মেরে রক্তাক্ত জখম করে এবং তার গলায় থাকা ১ ভরি উজনের একটি শর্নের চেইন ছিনিয়ে নেয়।

ঘটনার তদন্তে বহু সাক্ষী পাওয়া যাবে। এমন জঘন্য হামলায় এলাকায় নিন্দার ঝড় বইছে। এলাকাবাসি দোষীদের দৃষ্টান্ততমুলক শাস্তি দাবি করেন।

এ ঘটনায় ভালুকা মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email