|

গফরগাঁও “নাম” এর ইতিহাস

প্রকাশিতঃ ৫:৩৪ অপরাহ্ণ | এপ্রিল ০৪, ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক গফরগাঁওঃ গাফফার খান নামক জনৈক সেনানায়কের নামে ‘গফরগাঁও’ নামের উৎপত্তি। মুঘল সেনাপতি রাজা মানসিংহ ও বাংলার বারো ভূঁইয়ার নেতা ঈশা খানের সম্মুখ যুদ্ধটি গফরগাঁওয়ের বাশিয়া গ্রামে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। উল্লেখ্য যে, মানসিংহের কিছু কিছু বংশধর এখনো এখানে বাস করেন। গফরগাঁওয়ের বিরাট একটা অংশ ভাওয়াল পরগনাধীন এবং পূর্বাংশ চর আলগী ইউনিয়ন আঠারোবাড়ি জমিদার প্রশাসনের অন্তর্ভুক্ত ছিল।

ময়মনসিংহ জেলা সদর থেকে রেলপথে গফরগাঁও উপজেলা সদরের দূরত্ব ৪৮ কিলোমিটার। গফরগাঁও-এর বুক চিরে রেল পথটি বয়ে গেছে রাজধানী ঢাকা থেকে উত্তরাঞ্চলের দিকে, জগন্নাথগঞ্জ ঘাট এবং বাহাদুরাবাদ ঘাটের দিকে। এর উত্তরে ত্রিশাল ও নান্দাইল উপজেলা, দক্ষিণে গাজীপুর জেলার শ্রীপুর ও কাপাসিয়া উপজেলা, পশ্চিমে ভালুকা উপজেলা, পূর্বে ময়মনসিংহের নান্দাইল ও কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর ও পাকুন্দিয়া উপজেলা

ড. দীনেশ চন্দ্র সেন কর্তৃক বৃহত্তর ময়মনসিংহের ‘মৈমনসিংহ গীতিকা’ সংগ্রহকালে কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৎকালীন ছাত্র পল্লীকবি জসীম উদদীনকে এই এলাকায় নিয়োজিত করেন। গফরগাঁও অবস্থানকালে জসীম উদদীনের সাথে স্থানীয় রূপাই মিয়ার ঘনিষ্ঠতা হয়। রূপাই মিয়ার জীবনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে তিনি কয়েকটি ভাষায় অনুদিত তাঁর প্রখ্যাত কাব্যগ্রন্থ ‘নকশী কাঁথার মাঠ‘ রচনা করেন।এখানে জারি, সারি, বাউল ও কেচ্ছাগান নিয়মিত চর্চা হয়। ষাটের দশক পর্যন্তও ঘেঁটুগানের চর্চা এই অঞ্চলে নিয়মিত হতো। তাছাড়া প্রায়ই নৌকা বাইচ হয়ে থাকে।

গফরগাঁও উপজেলা ১টি পৌরসভা, ১৫টি ইউনিয়ন ও ২০২ টি গ্রাম নিয়ে গঠিত। ইউনিয়ন সমূহ হল- রসূলপুর, বারবারিয়া, চরআলগী, রাওনা, যশরা, সালটিয়া, গফরগাঁও, মশাখালী, উস্তি, পাইথল, পাঁচবাগ, লংগাইর, দত্তেরবাজার, নিগুয়ারী ও টাংগাব। গফরগাঁও উপজেলা দুটি থানা নিয়ে গঠিত, তা হল গফরগাঁও ও পাগলা। গফরগাঁও থানায় প্রথমশ্রেণীর পৌরসভা ছাড়া ইউনিয়নগুলো হল রসূলপুর, বারবারিয়া, চরআলগী, রাওনা, যশরা, সালটিয়া ও গফরগাঁও। আর পাগলা থানার ইউনিয়ন হল মশাখালী, উস্থি, পাইথল, পাঁচবাগ, লংগাইর, দত্তেরবাজার, নিগুয়ারী ও টাংগাব। পাগলা থানা একটি নতুন থানা, যা ২০১২ সালে চালু হয়েছে।

Print Friendly, PDF & Email